দীর্ঘ ৭১ বছর ধরে কোরআনের শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছে ‘পোরশা বড় মাদ্রাসা’

ফিরোজ মাহমুদ
নওগাঁ প্রতিনিধি:

দীর্ঘ ৭১ বছর থেকে কোরআনের শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছে উত্তরবঙ্গের ঐতিহ্য ‘পোরশা বড় মাদ্রাসা’। উত্তরবঙ্গের ঐতিহ্যবাহী এ মাদ্রাসাটির পুরো নাম ‘আল-জামিয়া আল-আরাবিয়া দারুল হিদায়া মাদ্রাসা’। সংক্ষেপে যাকে ‘পোরশা বড় মাদ্রাসা’ বলেই সবাই চেনে। এ মাদ্রাসাটি গোটা উত্তরবঙ্গের ঐতিহ্য।

১৯৪৬ইং সালে পোরশা গ্রামের প্রাণকেন্দ্রে প্রতিষ্ঠা করা হয় মাদ্রাসাটি। ঐতিহ্যবাহী মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠা করেন তৎকালীন সময়ের মুরব্বী মরহুম আব্দুল হাই শাহ। সে সময়ে মাদ্রাসাটি পরিচালনা করতেন মাওলানা সালেহ আহমাদ সাহেব। বর্তমান পরিচালকের দায়িত্ব পালন করছেন হযরত মাওলানা শরীফুদ্দীন শাহ। পুরো মাদ্রাসাটির জায়গা দান করেছিলেন তৎকালিন স্থানীয় জমিদার জিল্লুর রহমান শাহ চৌধুরী।

বর্তমানে এ মাদ্রাসায় দাওরায়ে হাদীস, ইফতা, আদব ও ক্বিরাত বিভাগে সর্ব্বোচ্চ শিক্ষা দেওয়া হয়। মাদ্রাসায় বর্তমান ছাত্র সংখ্যা প্রায় ১৫০০ জন, শিক্ষক ৫৪ জন ও কর্মচারী সংখ্যা ১৭ জন। ৪ একর অথ্যাৎ ১২ বিঘা সীমানার মধ্যে চারিদিকেই ৪ তলা গোলাকার মাদ্রাসার বিশাল ভবন। পূর্বদিকের ভবনের মাঝামাঝিতে রয়েছে অফিস রুম। ক্লাস ও আবাসিকসহ সর্বমোট কক্ষ রয়েছে তিন শতাধীক। মাদ্রাসার প্রধান গেটের বামেই মসজিদ।

পোরশার জমিদার মরহুম জিল্লুর রহমান শাহ এর দানকৃত জাগায় নির্মীত মাদ্রাসাটির চারিদিকে দেখতে একই রকম। এ মাদ্রাসায় অন্যান্য ছাত্রদের কাছ থেকে নাম মাত্র ভর্তি ফি নিয়ে লেখা পড়া করানো হয়। গরীব ও অসহায় ছাত্রদেরকে বিনা বেতনে এবং সকল ছাত্রদের ৩ বেলা খাবার একেবারে বিনামূল্যে দেওয়া হয়।

মাদ্রাসাটির বর্তমান মহাপরিচালক আলহাজ্ব মাওলানা শরীফুদ্দীন শাহ জানান, বহু পুরাতন আমাদের এ ইসলামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এখানে লেখাপড়া শেষ করে অনেক ছাত্র বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা করছেন। এ মাদ্রাসার অনেক ছাত্র বড় বড় আলেম, মাওলানা ও বক্তা হয়েছেন। এখানকার অনেক ছাত্রের মাধ্যমে উত্তরবঙ্গে বহু মসজিদ মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

তিনি আরও জানান, এ মাদ্রাসায় তার পূর্ব পুরুষরা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্নজন জমি দান করে গেছেন। যার পরিমান ১ হাজার বিঘা। এবং পরবর্তিতে পোরশার জমিদার জিল্লুর রহমান শাহ ৪শ বিঘা জমি দান করেন। বর্তমানে এ মাদ্রসার ১ হাজার ৪শ বিঘা জমি রয়েছে। এসব জমির ধান ও আম বিক্রি করে এবং বাৎসরিক বিভিন্ন সময়ে এলাকার বিত্তবানদের দান দিয়ে এ মাদ্রাসাটি পরিচালনা করা হয় বলেও বর্তমান মহাপরিচালক আলহাজ্ব মাওলানা শরীফুদ্দীন শাহ জানান।

মন্তব্য