মেয়েরা সবসময়ই বলে এই কথাগুলো, আর ছেলেরা সবসময়েই সেগুলোর ভুল অর্থ বের করে!

ঠিক আছে…

আপনি হয়তো দুনিয়ার যাবতীয় ভজঘট ভাষা নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করেন, চীনা, হিব্রু, জার্মান ইত্যাদি ভাষা আপনার ঠোঁটের ডগায় সবসময়েই ঘুরঘুর করে। কিন্তু আপনাকে যদি বলি, পৃথিবীতে এমন একটি ভাষা আছে যার অর্থ বের করা পৃথিবীর সব থেকে বড় ভাষা বিশারদের জন্যেও কঠিন- আপনার তখন কী মনে হবে?- হ্যাঁ কথা সত্য- যদিও লোকটার নাম জানি না, কিন্তু আমি নিশ্চিত সেই ভাষার সঠিক অর্থ বের করার ব্যর্থতা মাথায় নিয়ে তাঁকে প্রায়শঃই বাড়ির সামনের বারান্দায় মুখ চুন করে বসে থাকতে দেখা যায়। শিরোনাম আর আমার এইসব হাবিজাবি কথাবার্তা দেখে হয়তো এতক্ষণে বুঝতে পারছেন আমি কোন ভাষার কথা বলছি – ঠিক ধরেছেন, আমি সেই চিরায়ত রহস্যময় ভাষার কথা বলছি – কারও কারও মতে যা পৃথিবীর সবথেকে রহস্যময় ভাষা। নারীর ভাষা; তাদের কোন কথার মাঝে যে কী অর্থ লুকিয়ে আছে, তা কোনও পুরুষের পক্ষেই বোধহয় পুরোপুরি বোঝা সম্ভব নয়। আর এই ভাষার মধ্যে কিছু শব্দ আছে যেগুলোর অর্থ কোনওদিনই আপনি সঠিক ভাবে বুঝতে পারবেন না। এরকম বিশটি শব্দ আপনার সাহায্যার্থে আমরা পেশ করছি – আশা করি কোনও একদিন আপনার জীবণ বাঁচাবে।

#১ আমাকে কী এই ড্রেসটায় মোটা লাগছে?

ধরে নিন প্রশ্নটা হলো : তোমার কী মনে হয় আমি অসুন্দর? – উত্তরটা নিশ্চই এতক্ষণে ভেবে ফেলেছেন – “না” সব সময়েই “না”।

#২ কিছু না…

এটা অবশ্যই “কিছু” – কিছু একটা অবশ্যই আছে! এবং খুব শিঘ্রই আপনার সেটা বের করে ফেলা উচিৎ, নাহলে আপনার সামনে সমূহ বিপদ!

#৩ কর যা ইচ্ছা হয়…

এটাকে ভুল করেও অনুমোদন হিসেবে নেবেন না। আসলে এর পেছনে খুব বিপজ্জনক একটা কথা লুকিয়ে আছে: সাহস থাকলে কর, পরে যা হবে তার দায়িত্ব তোমার!- কাজেই যেখানে আছেন বসে থাকুন- যদি শান্তিতে থাকতে চান আর কি!

#৪ না

না, মানে না – বিশেষ ক্ষেত্রে হ্যাঁ হতে পারে – তবে খুব সাবধান!

#৫ হ্যাঁ

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এটার মানে “না”-ও হতে পারে। ব্যাপারটা বোঝা খুবই কঠিন।

#৬ হয়তো…

না-ই আছে… মত বদলায়নি

#৭ খুব ভাল হয় যদি…

“যদি”র পর যা আসবে সবকিছুকেই আপনি অপরিবর্তনীয় আদেশ হিসেবে ধরে নিতে পারেন।

#৮ ঠিক আছে…

এর মানে তর্ক শেষ – হার মেনে নিন!

#৯ সমস্যা নেই

নেই মানে? – অবশ্যই সমস্যা আছে! আলবাৎ আছে! “সমস্যা নাই” বলার মানে হচ্ছে তিনি আপনাকে কী শাস্তি দেয়া যায় সেটা ভাবার জন্য একটু যুদ্ধবিরতি দিয়েছেন।

#১০ তুমিকি শুনছিলে আমার কথা?

আপনি শুনছিলেন না!! এর থেকে বাঁচার কোনও উপায় আপাতত কেউ বের করতে পারেনি- আপনি পারলে বাকিদের জানিয়ে বাধিত করবেন।

#১১ সেটা তোমার সিদ্ধান্ত

যদি আপনি ভেবে থাকেন যে এর মানে সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা আপনাকে দেয়া হল, আপনার জীবণের সবথেকে বড় ভুলটা করে ফেলবেন। এই ভয়ঙ্কর বাক্যটির আসল মানেটা একটু লম্বা :“সেটা তোমার সিদ্ধান্ত… তুমি ভেবে বের করো যেটা করাটা সঠিক, আমি জানি কোনটা সঠিক কিন্তু আমি তোমাকে বলব না কারণ যে কোনও বুদ্ধিমান প্রাণীরই এটা জানা থাকা উচিৎ!- যদি দুর্ভাগ্যবশতঃ কোনও ভাবে আপনি “বুদ্ধিমান প্রাণী” হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করতে না পারেন ….. বাকিটা কী আর বলার দরকার আছে।

#১২ তোমার সাথে কথা আছে

আপনি শেষ!

#১৩ তোমার কী এটা এখনই করা লাগবে?

এটাও কোনও প্রশ্ন নয়; এর মানে হলো : যা করছেন এখনই বন্ধ করুন, আর পরবর্তী নির্দেশের অপেক্ষায় থাকুন!

#১৪ তোমার ঠিকমত কথা বলা শেখা উচিৎ!

“ঠিকমত কথা বলা” মানে কখনও কখনও “তার কথা মেনে নেওয়া” হতে পারে!

#১৫ আমি এ নিয়ে কোনও কথা বলতে চাই না…

তিনি চান আপনি আপাতত দূরে থাকুন, আপনার বিরুদ্ধে যথেষ্ঠ তথ্য-প্রমাণ এখনও তিনি ভেবে বের করতে পারেননি!

#১৬ “জোর দীর্ঘশ্বাস”

\nআপনি হয়তো বুঝছেন না, কিন্তু এটা আসলে একটা কঠিন উক্তি যার অন্তর্নিহিত গূঢ় মর্মার্থ এইরূপ : “আমার বিশ্বাস হচ্ছেনা এইরকম একটা গরুর গাধামী আমাকে বসে বসে সহ্য করতে হচ্ছে।”

#১৭ পাঁচ মিনিট…

ব্যাপারটা আসলে নির্ভর করে সে আসলে কি করতে চাইছে – যদি তিনি পোশাক বদলাতে যান, তাহলে আপনাকে ত্রিশ অথবা চল্লিশ মিনিটের মাঝামাঝি কিছু একটা ধরে নিতে হবে। আর যদি এমন হয় তিনি আপনাকে টিভি বন্ধ করে “পাঁচ মিনিটের” ভেতর শুতে যেতে বলছেন তাহলে ধরে নিতে হবে আপনার সময় “জিরো” অর্থাৎ শুণ্য মিনিট!

#১৮ লাগবে না…

এর মানে হলো তিনি আপনাকে বারবার একটা জিনিস করতে বলেছিলেন আপনি যে কোনও কারণেই হোক করতে পারেননি- এখন তিনি সেটা নিজেই করতে যাচ্ছেন।

#১৯ তুমি যেখানে নিয়ে যাবে, সেখানেই যাব…

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এর মানে হলো : “আমার প্রিয় জায়গায় যাওয়াটাই তোমার জন্য ভাল হবে।”

#২০ কী করছ তুমি এটা?

এটা আসলে কোনও প্রশ্ন নয়। এটা একটা উক্তি যার মানে হল : আপনি যা করছেন ভুল করছেন!

Image Credit: list25.com

মন্তব্য