প্রতি লিটারে আরও ১২ টাকা বাড়ছে সয়াবিন তেলের দাম

|

দেশের বাজারে আবারও বাড়াছে সয়াবিন তেলের দাম। রমজান মাসকে সামনে রেখে দেশে তেল চিনি ছোলা ডালসহ কয়েকটি পণ্যের চাহিদা বাড়ে। ব্যবসায়ীরা প্রতি বছরই এ সময় নিত্যপণ্যের দাম বাড়ান। এর মধ্যে সয়াবিন তেলের দাম আরেক দফা লিটার প্রতি ১২ টাকা বাড়ছে। পরিশোধনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব আজ রবিবার ২৭ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনে (বিটিটিসি) জমা দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন দাম বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে। সচিব নূরুল ইসলাম মোল্লা স্বাক্ষরিত প্রস্তাবে বলা হয়েছে, গত ১৮ নভেম্বর সরকার নির্ধারিত দাম অনুযায়ী পরিশোধনকারী প্রতিষ্ঠান লিটারপ্রতি ১৭২ টাকা মূল্য পুনর্নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়। ওই প্রস্তাবের আলোকে গত ৬ ফেব্রুয়ারি বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ১৬৮ টাকা পুনর্নির্ধারণ করে।

এর আগে গত ৩ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববাজারে দাম বিবেচনায় প্রতি লিটারের দাম ১৮৬ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়। ওই প্রস্তাব অনুযায়ী ১৯ ফেব্রুয়ারি তা কার্যকর করার কথা ছিল। ভোক্তা সাধারণের কথা বিবেচনায় নিয়ে তা কার্যকর করা হয়নি।

এদিকে বর্তমানে দেশের ভেতরে পণ্যের দাম বিবেচনায় গত ৩ ফেব্রুয়ারির প্রস্তাব বিবেচনার বিকল্প নেই। বাজারে ভোজ্যতেলের সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে এবং ভোক্তার কথা বিবেচনায় নিয়ে প্রস্তাবিত দাম থেকে ৬ টাকা ছাড় দিয়ে লিটারপ্রতি ১৮০ টাকা নির্ধারণ করে ১ মার্চ থেকে কার্যকর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পরিশোধনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন। এদিকে এক লিটার লুজ সয়াবিন তেলের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১৪৩ টাকা, ৫ লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম ৮৭০ টাকা।

এছাড়া পাম তেলের দাম লিটার প্রতি ১৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। উৎপাদকরা বলছেন, আন্তর্জাতিক বাজারে চলতি মাসের শুরুতে তেলের দাম প্রতি টন ১,৪০০ ডলার ছাড়িয়েছে। অয়েল রিফাইনার্স ও ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন জানিয়েছে, আন্তর্জাতিক বাজারে গত ২০ দিনে সয়াবিন তেলের দাম বেড়ে প্রতি টনে ১৭০০-১৭২৫ ডলারে পৌঁছেছে। এ কারণে কোম্পানিগুলো দাবি করছে, দাম না বাড়ালে তাদের ব্যাপক লোকসান গুণতে হবে।




Leave a reply