৩ হাজার কোটির বিমান, ৭৫০ কোটির জাহাজ, সোনার কমোড, পুতিনের লাইফস্টাইল জানেন আপনি চিৎ হয়ে পড়বেন?

|

রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনে হামলা করার পর থেকে বিবাদের মধ্যে রয়েছেন এবং বিশ্বজুড়ে ফোকাস এখন তার ওপরে। এই হামলার পরে আমেরিকা এবং তার সহযোগী দেশগুলোর ওপর বিভিন্ন রকম প্রতিবন্ধকতা লাগানো শুরু করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন, কানাডা এবং আমেরিকা। সমস্ত পুতিনের ওপর নানা রকমের বিধিনিষেধ আরোপ করতে শুরু করেছে। যদিও এক্সপার্ট এর রায় অনুযায়ী পুতিনের ওপর প্রতিবন্ধকতা লাগানোর কোনও বিশেষ প্রভাব পড়বে না। এর কারণ পুতিনের কাছে বেহিসাবি সম্পত্তি রয়েছে বলে তাদের কাছে খবর জানিয়ে এমনি আলিশান জীবন যাপন করতে পারেন।

রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির অফিস ক্রেমলিনে। কিন্তু বিশ্বাস করুন পুতিনের কাছে ১.৪০ লাখ ডলারের স্যালারি রয়েছে। ভারতীয় টাকায় যা প্রায় এক কোটি টাকার কাছে। যদিও লোকপ্রিয় ও জনপ্রিয় লোকজনের ওপর নজর রাখা ওয়েবসাইট CACNOWLWDGE এর হিসেবে এখন পুতিনের বার্ষিক স্যালারি ২.৪০ লক্ষ ডলার। অর্থাৎ প্রায় ১ কোটি ৮০ লক্ষ টাকা। এই অনুযায়ী ভারতের রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর সেলারি খুবই সামান্য। ভারতের রাষ্ট্রপতির স্যালারি ৬০ লক্ষ টাকা প্রতি বছর। প্রধানমন্ত্রীর স্যালারি ২০ লক্ষ টাকার চেয়েও কম।

পুতিন নিজের লাগজারি লাইফস্টাইলে নিয়ে সমস্ত চর্চার মধ্যে থাকেন। তাঁরা আলিশান জীবনযাপন নিয়ে কী আর বলবো? যা দেখে সবাই হতবাক হয়ে যাবেন নিশ্চিত। খবর অনুসারে রাস্ট্রপতির কাছে ৭৫০ কোটি টাকার গ্রেসফুল নামক সুপার ইয়ট রয়েছে। রাশিয়ার নৌ সেনার জন্য পরমাণু সাবমেরিন বানানেওয়ালা কোম্পানি তৈরি করেছে। এবং ইন্তেরিয়র এক্সটেরিয়র ডিজাইন বানিয়েছে বিখ্যাত কোম্পানিগুলি। এই সুপার ইয়টে হেলিপ্যাড, ডাইনিং এরিয়া, ককটেল বারের মত সুবিধা রয়েছে। পৃথিবীর সবচেয়ে দামী ওয়াইনের ৪০০ বোতল রাখা হয় এখানে। কিছু সময় আগে পর্যন্ত জার্মানিতে পার্ক করা ছিল এটি। কিন্তু ইউক্রেনে হামলার পরে প্রতিবন্ধকতা লাগানোর আশঙ্কায় এটি জার্মানি থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

পুতিনকে এখন জলের রাস্তায় নয় বরং আকাশের ঘুরে বেড়াতে দেখা যাচ্ছে। সেখানে তিনি এখন বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন এবং তিনি যখন যেখানে যাবেন তার ক্লাসিকাল স্টাইল অনুসরণ করবেন না তা কী হয়! তার আকাশযানও সেই ভাবেই ডিজাইন করা হয়েছে। তিনি বিশেষ ধরণের বিমান পছন্দ করেন। নিউইয়র্ক টাইমসের খবর অনুযায়ী এই বিমানে ৩৯০ মিলিয়ন ডলার অর্থাৎ প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকা দাম। এটি ফ্লাইং ক্রেমলিন নাম দেওয়া হয়েছে। যার অর্থ হলো রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির উড়ন্ত দপ্তর। গার্ডিয়ানের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী খবর মিলেছে, বিমানে সোনার তৈরি টয়লেট রয়েছে। যা নিজেই শুধু মাত্র ৩৫ লক্ষ টাকা দাম। এই বিমান উড়ন্ত একটা আস্ত কেল্লা এবং প্রতি ঘন্টায় ৫৯০ মাইল সফর করতে পারে। এতে বার, বেডরুম ছাড়াও রয়েছে নানা সুবিধা। বিভিন্ন রকম যার সাহায্যে প্রতিদিন সফর করতে করতেই তার সেনাকে কন্ট্রোল করতে পারে।

অনেক কম লোকেরাই জানেন যে রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার আগে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের সময় কুখ্যাত সুফিয়া এজেন্সি কেজিবি KGB-র টপ এজেন্ট ছিলেন। তার কাছে সৈন্য পরিচালনার কড়া অনুভব এবং বিভিন্ন সেক্রেট মিশন সাফল্যের সঙ্গে অতিক্রম করার অভিজ্ঞতা রয়েছে। প্রায় রোজই তিনি নিজের সৈন্য কৌশল সার্বজনিক করতে থাকেন। কিছু সময় আগে তিনি কিছু ছবি ভাইরাল হয়েছিল যার মধ্যে দেখা গিয়েছিল যে তিনি একটি সাবমেরিন চালাচ্ছেন। তখন ফিনল্যান্ডের খাঁড়িতে সী এক্সপ্লোরার ৩.১ সাবমারসিবল পাম্প সাবমেরিনে সমুদ্রের গভীরে ঢুঁ মারছিলেন। তিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ডুবে যাওয়া সোভিয়েতের সাবমেরিনের খোঁজ অভিযানে লিড করছিলেন।

পুতিনের বিরোধীরা রাশিয়ার বিপক্ষ নেতা আলেক্সাই নওলানির anti-corruption তথ্যা দিয়েছিল। তাতে পুতিনের নিজস্ব ম্যানসন বলে একটি কেল্লার মতো বাড়ির একাধিক ছবি পাবলিক করা হয়েছিল। বলা হচ্ছে যে রাশিয়ার ব্ল্যাক সি-এর এর কোনায় অবস্থিত এই মেনশন ১ বিলিয়ন ডলারের বেশি দাম। এটি পুতিনের নিজস্ব ব্যবহারের জন্য বানানো হয়েছে বলে জানানে হয়েছিল। মার্বেল রয়েছে এবং এটি ইউনানের দেবতাদের মূর্তি নিয়ে সাজানো হয়েছে। এই ভবনে বার, সুইমিং পুল, থিয়েটার, ক্লাবের মত সুবিধা রয়েছে। রিসার্চার জানিয়েছেন যে পুতিনের এই ম্যানসন পুরনো রাজাদের ভবনের স্মৃতি ফিরিয়ে এনেছে। যদিও পুতিন এই বিষয়টি খোলাসা করার পর বোরিং বলে দাবি করে তাঁর নয় বলে অস্বীকার করেছেন।

রাশিয়ার নেতা ফিটনেস ফ্রিক বলেও বিখ্যাত। মনে করা হয় পুতিনের বয়স ৬৯ বছর হয়েছে। কিন্তু এখনও তিনি ফিটনেসে যুবকদের টেক্কা দিতে সক্ষম। তাঁর এক্সারসাইজের অভ্যাস হয়েছে। তাঁকে নানা সময় ফিটনেসের সঙ্গে অনাপোষ পরিশ্রম করতে দেখা যায়।




Leave a reply