শেষমেষ ২০০ ছুঁলো খোলা সয়াবিন তেলের দাম!

|

ময়মনসিংহে খোলা সয়াবিনের কেজি ২০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। সরকার খোলা সয়াবিনের কেজি ১৬৮ টাকা নির্ধারণ করে দিলেও অদৃশ্য কারণে বাড়ছে দাম। শনিবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকালে ময়মনসিংহ নগরীর ঐতিহ্যবাহী শম্ভুগঞ্জ বাজারে ঘুরে এসব তথ্য পাওয়া যায়।

বাজারের বিভিন্ন দোকানে ঘুরে খোলা ও বোতলজাতকরণ সয়াবিন তেলের দামে ১৫ থেকে ২০ টাকা পার্থক্য দেখা যায়। ওই বাজারের অথই স্টোরের বিক্রেতা শিবু সাহা বলেন, খোলা সয়াবিন তেল তিন সপ্তাহে ৩০ টাকা বেড়ে ২০০ কেজি হয়েছে। পাম তেল ১৭৫, কোয়ালিটি তেল ১৮০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া বোতলজাতকরণ সয়াবিন তেল ১৯০ টাকা লিটার বিক্রি করা হচ্ছে।

রাজলক্ষ্মী স্টোরের বিক্রেতা নুপুর দাস বলেন, ৫০ কেজির চিনির বস্তা গত সপ্তাহে ৩ হাজার ৭০০ টাকায় কিনেছি। এই সপ্তাহে ৩ হাজার ৮২০ টাকায় কিনেছি। তবে আমরা চিনি ৮০ টাকা কেজি দামেই বিক্রি করছি।

তিনি আরও বলেন, বড় মসুর ডাল ৯৫, দেশি মসুর ডাল ১২০, মাসকলাই ১৮০, ভাঙ্গা মাসকলাই ১২০, মুগডাল ১৩০, অ্যাংকার ৫০, বুটের ডাল ৮০, খেসারির ডাল ৭০, মটর ১২০, ছোলা বুট ৭৫, খোলা আটা ৩৫, প্যাকেট ৪০ কেজি বিক্রি হচ্ছে।

শম্ভুগঞ্জ বাজারের সবজি বিক্রেতা হাসান ফকির বলেন, সব প্রকার সবজির দাম সপ্তাহের ব্যবধানে ৫ থেকে ১০ টাকা কমেছে।

তিনি জানান, শসা ৩০, বেগুন ৪০, টমেটো ৩০, গাজর ২৫, কাঁচামরিচ ৪০, চিচিঙা ৫৫, মটরশুঁটি ৮০, সিম ৩৫, করলা ৮০, মুলা ৪০, লতা ৮০, কুমড়া ৫০, ঢ্যাঁড়স ১০০, পেঁপে ৩০, পেঁয়াজ পাতা ৪০, ফুলকপি ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি পিস মিষ্টি কুমড়া ৪০, লাউ ৬০ ও এক হালি কাঁচকলা ২৫ টাকা বিক্রি হচ্ছে।

মাছ বাজারের মানিক মিয়া জানান, মাছের দামে তেমন ওঠানামা নেই। পাঙ্গাশ ১৩০, রুই মাছ ২৪০, পাবদা ২৫০, সিলভার মাছ ১৮০, রাজপুঁটি ১৮০, পাঁচ মিশালি গুড়া ১৭০, টাকি মাছ ৩২০, চিংড়ি ৬০০, কাকিলা ৫০০, টেংরা ৪০০, মৃগেল ৩০০, কার্ফু ২৪০, শিং মাছ ৩০০, কাতল মাছ ২৮০, তেলাপিয়া ১৪০, কৈ মাছ ২৪০, বোয়াল মাছ ৫৫০ কেজি বিক্রি হচ্ছে।

ওই বাজারের মুরগি বিক্রেতা মিজান মিয়া বলেন, ব্রয়লার মুরগির দাম বাড়েনি। তবে, সোনালী মুরগি কেজিতে ৪০ টাকা বেড়েছে। সোনালী মুরগি ৩০০, ব্রয়লার ১৫০, কক মুরগি ২৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। এদিকে, দেশি মুরগির ডিম ৬০ টাকা হালি, ফার্মের মুরগির ডিম ৩৫ টাকা হালি, হাঁসের ডিম ৫৫ টাকা হালি বিক্রি হচ্ছে।

মাংস মহালের মাংস বিক্রেতা সুলতান মিয়া বলেন, মাস খানেক আগে খাসি ও গরুর মাংসের দাম বেড়েছিল। এরপর আর কমেনি। খাসির মাংস ৯২০ থেকে ৯৫০ টাকা ও গরুর ৬০০ থেকে ৬২০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

একই বাজারের খোকন মিয়া বলেন, পেঁয়াজ কেজিতে ৫ টাকা করে বেড়েছে। দেশি ৪৫, ইন্ডিয়ান পেঁয়াজ ৪০, রসুন ৪০, আদা ৬০, আলু ১৫ থেকে ২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।