যুদ্ধাপরাধের বিচার হবে ইউক্রেনে

|

টানা ষষ্ঠ দিনের মতো ইউক্রেনে হামলা চালাচ্ছে রাশিয়া। একসঙ্গে তিনদিক দিয়ে হওয়া এই হামলায় কয়েকদিনেই ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়েছে ইউক্রেনের বহু এলাকা। এই পরিস্থিতিতে ইউক্রেনে যেকোনো ধরনের যুদ্ধাপরাধের বিচার করা হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে যুক্তরাজ্য। মঙ্গলবার (১ মার্চ) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এবারই প্রথম ইউরোপের প্রথম দেশ হিসাবে রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনী স্থল, আকাশ এবং সমুদ্রপথে ইউক্রেনে সবচেয়ে বড় হামলা শুরু করেছে। একসঙ্গে তিন দিক দিয়ে হওয়া এই হামলায় ইউক্রেনের বিভিন্ন শহরে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র বৃষ্টির মতো পড়েছে।

ইউএনএইচসিআর বলছে, ইউক্রেনের ৫ লাখ ২০ হাজারের বেশি বাসিন্দা ইতোমধ্যে তাদের ঘরবাড়ি ছেড়েছেন। পরিস্থিতির অবনতি ঘটলে ৫০ লাখ পর্যন্ত মানুষ ইউক্রেনে ঘরছাড়া হতে পারে বলেও আশঙ্কা সংস্থাটির।

এই পরিস্থিতিতে মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যের উপপ্রধানমন্ত্রী ডমিনিক রাব বলেছেন, ইউক্রেনে আরও ভারী কৌশল ব্যবহার করবে রাশিয়া এবং সেখানে সংঘটিত যেকোনো যুদ্ধাপরাধের বিচার হবে। তিনি আরও বলেন, ‘আমরা যে সব পদক্ষেপ নিচ্ছি তার ভেতরে আমরা যুদ্ধাপরাধের প্রমাণ সংরক্ষণ করার প্রচেষ্টাকেও সমর্থন করছি।’

রাশিয়ার ব্যাপক হামলার মুখে অবিলম্বে ‘নো ফ্লাই জোন’ ঘোষণার দাবি জানিয়েছিলেন ইউক্রেনের প্রেসিডন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো সেটি প্রত্যাখ্যান করে।

বিবিসি ব্রেকফাস্ট অনুষ্ঠানে ডমিনিক রাব এ বিষয়ে বলেন, ইউক্রেনের ওপর নো-ফ্লাই জোন আরোপ করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ইচ্ছুক নয়, কারণ এতে করে রুশ বিমানগুলোকে গুলি করে ভূপাতিত করার প্রবণতা বাড়বে, যা ‘স্পষ্টভাবে উত্তেজনা বাড়াবে’।




Leave a reply