‘নিরপরাধকেও ছাড়ছি না মা!’ রুশ সেনার শেষ বার্তা জাতিসংঘে

|

ইউক্রেনে যুদ্ধরত এক রুশ সেনা তার মাকে লেখা চিঠিতে বলেছেন, ‘ইউক্রেনে আছি। আমরা হত্যা করছি নিরপরাধকেও! ওরা আমাদের ফ্যাসিস্ট বলে ডাকছে। গলায় দড়ি দিয়ে ঝুলতে ইচ্ছে করছে মা!’

চিঠিটি সোমবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) জাতিসংঘে ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত সের্গি কিসলিতসিয়া উচ্চস্বরে সেখানে উপস্থিত সবাইকে পাঠ করে শোনান। এদিন ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের প্রেক্ষিতে জরুরি ভিত্তিতে ডাকা একটি বিশেষ অধিবেশন ডেকেছিল জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ। সেখানে ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘আমি একটি স্মার্টফোন থেকে নেওয়া একটি মেসেজের স্ক্রিনশটে নেওয়া কিছু লেখা পড়ে শোনাচ্ছি। যা একজন রাশিয়ান সেনা তার মাকে পাঠিয়েছেন!’ এরপর তিনি লেখাগুলি পড়ে শোনান।

ইউক্রেনের পরিস্থিতি বোঝাতে যুদ্ধে নিহত ওই রুশ সেনার এই শেষ বার্তা পাঠ করে শোনান ইউক্রেন রাষ্ট্রদূত সের্গি কিসলিতসিয়া। তিনি বোঝাতে চাইলেন, কীভাবে ইউক্রেনে সাধারণ, নিষ্পাপ মানুষকেও রাশিয়ান সেনারা হত্যা করেছে।

মেসেজটি একটি চিঠির মতো। যেখানে মা ও ছেলের কথোপকথন রয়েছে। রাশিয়ান সেনাটি তার মাকে এক জায়গায় লিখেছেন, ‘মা, আমি এখন ইউক্রেনে। এখানে সত্যিই যুদ্ধ শুরু হয়ে গিয়েছে। আমি ভয় পাচ্ছি। একসঙ্গে সব শহরে বোমা বর্ষণ করছি আমরা। এমনকি সাধারণ মানুষকেও আক্রমণ করছি… খুব কষ্টদায়ক মা!’

মেসেজগুলির ফটো ফাঁস করে ইউক্রেনের নিরাপত্তা বিভাগ। সেগুলি প্রকাশ করে ইউক্রেনের গণমাধ্যম ইউক্রিনফরম। সের্গি কিসলিতসিয়া সোমবার জাতিসংঘে বলেন, ‘সেনাটির মৃত্যুর খবর জানা যায়নি। তবে তার খোঁজও আর পাওয়া যায়নি। সম্ভবত তিনি মারা গিয়েছেন। তার মৃত্যুর আগে মাকে একাধিক বার্তা পাঠিয়েছিলেন।’

একটি বার্তায় ওই সেনা তার মাকে লিখেছিলেন, ‘আমাদের বলা হয়েছিল, ইউক্রেন নাকি স্বাগত জানাবে। এখানে এসে দেখলাম, তারা আমাদের সাঁজোয়ার নীচে পড়ছে, চাকার তলায় নিজেদের নিক্ষেপ করছে। কোনোভাবেই আমাদের ইউক্রেনে ঢুকতে দিতে চায় না তারা। মা, ওরা আমাদের ফ্যাসিস্ট বলে ডাকে। এটা খুব কঠিন।’

তার মাও একটি রিপ্লাইতে জানতে চেয়েছিলেন, তিনি কোনো পার্সেল পাঠালে, খাবার পাঠালে ছেলে পাবে কি না? জবাবে ছেলে বলেছিলেন, ‘এখানে যুদ্ধ চলছে মা। সত্যিকার যুদ্ধ! পার্সেল আসবে না!’

সোমবার বেলারুশ সীমান্তে ইউক্রেনীয় ও রুশ প্রতিনিধিদলের প্রথম দফার বৈঠকে অনুষ্ঠিত হয়। পরবর্তী দফার বৈঠকের আগেই রুশ সেনারা দেশটিতে বৃহৎ আকারে প্রবেশ করলো।

আবার, চলমান সংলাপের মধ্যে সোমবার রাশিয়া নিষিদ্ধ ঘোষিত ভ্যাকুয়াম বোমা ব্যবহার করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।




Leave a reply