ইউক্রেন সমস্যার প্রভাব বাংলাদেশও এড়াতে পারবে না: ব্রিটিশ হাইকমিশনার

|

ইউক্রেন সংকটে রাজনৈতিক, কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক সমস্যায় পড়তে পারে বাংলাদেশ। এমন শঙ্কার কথা জানিয়ে ঢাকায় নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার বলেছেন, বাংলাদেশও এড়াতে পারবে না এই আগ্রাসনের রাজনৈতিক, কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক প্রভাব। তাই নিজ স্বার্থেই যুক্তরাজ্যের সাথে একজোট হয়ে এই সহিংসতার বিরুদ্ধে দাঁড়ানো উচিৎ বলে মত তার। যমুনা নিউজকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে ব্রিটিশ এই কূটনীতিক বলেন, এমন পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে যুক্তরাজ্য-বাংলাদেশসহ পুরো বিশ্বকেই এক কাতারে দাঁড়াতে হবে।

একের পর এক হামলায় বিপর্যস্ত ইউরোপের দেশ ইউক্রেন। শেষ ৭৫ বছরের ইতিহাসে ইউরোপে এমনটা ঘটেনি যা নিয়ে উদ্বিগ্ন ব্রিটেন। যমুনাকে দেয়া সাক্ষাতকারে দেশটির হাইকমিশনার রবার্ট ডিকসন জানালেন, রাশিয়া উদ্দেশ্যমূলকভাবে উস্কানি দিয়ে শান্তিপ্রিয় দেশ ইউক্রেনে আগ্রাসী হামলা চালাচ্ছে। যা আন্তর্জাতিক বিধির পরিপন্থি। তিনি বলেন, রাশিয়া উদ্দেশ্যমূলকভাবে উস্কানি দিয়ে শান্তিপ্রিয় দেশ ইউক্রেনের ওপর আগ্রাসী হামলা চালাচ্ছে।

রাশিয়ার বিধ্বংসী মনোভাবে পুরো বিশ্বেই অস্থিরতা বিরাজ করবে সেইসাথে বাড়বে বিভিন্ন পণ্যের দাম। ঢাকায় নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার মনে করেন, এটি একটি মর্মান্তিক পরিস্থিতি। সারা বিশ্বেই এর বাজে প্রভাব পড়বে। তেলের দাম বৃদ্ধিসহ বিশ্বজুড়ে অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতা বাড়াবে, যা সবার জন্যই আশঙ্কাজনক।

এই কূটনীতিক মনে করেন, বাংলাদেশও এড়াতে পারবে না এই আগ্রাসনের রাজনৈতিক, কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক প্রভাব। তাই নিজ স্বার্থেই যুক্তরাজ্যের সাথে এক জোট হয়ে বাংলাদেশের এই সহিংসতার বিরুদ্ধে দাঁড়ানো উচিৎ বলে মত তার। ডিকসন বলেন, আন্তর্জাতিক আইনের প্রতি বিশ্বের প্রত্যেকেরই সমর্থন জানানো উচিত। এভাবেই আমরা বাঁচি। যুক্তরাজ্য ও বাংলাদেশসহ সকলের স্বার্থেই রাশিয়ার এই কার্যক্রমের বিরুদ্ধে দাঁড়ানো উচিত, এবং বলা উচিত এটা ভুল।

ইউক্রেনের চাওয়া তারা ইইউতে জয়েন করবে। আসলেই সেটা ঘটলে রাশিয়ার জন্য থ্রেট হতে পারে। আমরা স্বাগত জানাবো তাদের ভালোর জন্যেই। আকস্মিক রুশ আগ্রাসনে বিস্মিত ব্রিটিশ হাইকমিশনারের আশা শিগগিরই ইউক্রেন ছেড়ে যাবে রাশিয়ার সেনারা।




Leave a reply