রাজধানী কিয়েভে হামলার হুমকি রাশিয়ার, বাসিন্দাদের দ্রুত সরে যাওয়ার অনুরোধ

|

এবার রাশিয়ার সৈন্যরা ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে হামলার প্রস্তুতি নিয়েছে বলে শহরের বাসিন্দাদের সতর্ক করেছে রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। গতকাল মঙ্গলবার বিকালে এক বিবৃতিতে রুশ কর্মকর্তারা বলেছেন ইউক্রেনের ‘নিরাপত্তা বিভাগের প্রযুক্তি কেন্দ্র এবং প্রধান সাই-অপ সেন্টার’ টার্গেট করে হামলা চালানো হবে।

এ সব সামরিক স্থাপনার কাছাকাছি এলাকা থেকে বেসামরিক লোকজনকে দ্রুত সরে যেতে বলা হয়েছে। রুশ বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ইউক্রেনের যেসব নাগরিক জাতীয়তাবাদীদের উসকানিতে তৎপর তাদের এবং কিয়েভের অন্য বাসিন্দা যারা এসব স্থাপনার কাছে বসবাস করছেন তাদের সেখান থেকে সরে যাওয়ার অনুরোধ করছি।’

এদিকে রুশ কর্মকর্তারা বলছেন রাশিয়ার বিরুদ্ধে প্রচারণা বন্ধের লক্ষ্যে এই হামলা চালানো হবে। এর আগে ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভে রাশিয়া ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে বলে দাবি করেছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্র কুলেবা। টুইটারে ভিডিও প্রকাশ করে এই দাবি করেছেন তিনি। এতে হতাহতের শঙ্কা করা হচ্ছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার সকালে শহরের প্রাণকেন্দ্র ফ্রিডম স্কয়ারে এ হামলা হয়। সেখানকার সরকারি কার্যালয়গুলো এ হামলার লক্ষ্যবস্তু ছিল বলে মনে করা হচ্ছে। খারকিভে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার একটি ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে টুইট করেন দিমিত্র কুলেবা এবং সেখানে বলেন, ‘বর্বর রুশ ক্ষেপণাস্ত্রগুলো খারকিভের কেন্দ্রস্থল ফ্রিডম স্কয়্যাার ও সরকারি দপ্তরগুলোতে আঘাত হেনেছে।’

ইউক্রেনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, আঞ্চলিক প্রশাসনিক ভবনের সামনে একটি ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত করেছে। প্রচণ্ড বিস্ফোরণের কারণে আশপাশের বিভিন্ন ভবনের জানালা ও গাড়ি উড়ে গেছে।

ভিডিও ফুটেজে আরো দেখা যায়, শহরের প্রাণকেন্দ্রে পুড়ে যাওয়া গাড়ি ও ধ্বংসস্তূপ পড়ে আছে। স্থানীয় সময় আজ সকাল আটটার দিকে এ হামলা হয়। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কারো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করেছে বিবিসি। ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভে ১৬ লাখ মানুষের বসবাস। কয়েক দিন ধরেই শহরটিতে ইউক্রেনীয় ও রুশ সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষ ও বিমান হামলা চলছে।

গতকাল মঙ্গলবার খারকিভের আঞ্চলিক প্রধান ওলে সিনেহুবভ অভিযোগ করেছেন, রুশ বাহিনী আবাসিক এলাকা লক্ষ্য করে গ্র্যাড ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ছে। এটি ট্রাকে স্থাপিত এমন একধরনের ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা, যা একসঙ্গে অনেকগুলো গোলা ছুড়তে সক্ষম। রয়েল ইউনাইটেড সার্ভিস ইনস্টিটিউটের স্থলযুদ্ধ ও সামরিক বিজ্ঞানসংক্রান্ত গবেষক জ্যাক ওয়াটলিং বলেন, ইউক্রেনের ভেতরে নিজেদের সেনা উপস্থিতি ৪০ থেকে বাড়িয়ে প্রায় ৭৫ শতাংশ করেছে রাশিয়া।

এদিকে টানা ৬ দিন ধরে ইউক্রেনে চলছে রুশ আগ্রাসন। এর আগের স্যাটেলাইটের ছবি বলছে, বিশাল সামরিক বহর ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। তাদের সঙ্গে রয়েছে অস্ত্র, সামরিক যান, ট্যাংক, হেলিকপ্টার । এছাড়াও মহাকাশ প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ম্যাক্সারের প্রকাশ করা নতুন আরো কিছু ছবিতে বেলারুশের দক্ষিণাঞ্চলে ইউক্রেনের সীমান্তের ২০ মাইলের মধ্যে রুশ সেনাবাহিনী ও অ্যাটাক হেলিকপ্টার দেখা গেছে।




Leave a reply