এফডিসিতে নতুন নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা!

|

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছিল গত জানুয়ারি মাসে। কিন্তু শেষ হয়েও যেন শেষ হচ্ছে না এ নির্বাচন। থেকে যাচ্ছে এর রেশ। নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদকের পদ নিয়ে জটিলতা হাইকোর্ট থেকে এবার চলে গেছে সুপ্রিম কোর্টে।

এসবের মধ্যেই আবারও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বিএফডিসিতে। এবারের নির্বাচনে অংশ নেবে দীর্ঘদিন ধরে নেতৃত্বহীন থাকা বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক-পরিবেশক সমিতি।

সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রযোজক নেতা মোহাম্মদ ইকবাল।

এ সময় তিনি বলেন, ২১ মার্চ এফডিসিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মঙ্গলবার (১ মার্চ) এক জরুরি বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সেভাবেই সব আয়োজনের প্রস্তুতি প্রস্তুতি চলছে।

তিনি আরও বলেন, প্রায় আড়াই ঘণ্টা বৈঠক করেছি। সবাই মিলে নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। নির্বাচন কমিশনও গঠিত হয়েছে। আশা করি সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে যোগ্য নেতৃত্ব পাবে সমিতি। প্রায় দেড়শ ভোটার এ নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

দীর্ঘদিন ধরেই নেতৃত্বহীন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক-পরিবেশক সমিতি। কয়েক দফা নির্বাচনের চেষ্টা করা হলেও শেষ পর্যন্ত নানা সংকটে তার আর হয়ে উঠেনি। বর্তমানে এই সমিতি চলছে প্রশাসক নিয়োগের মাধ্যমে। নির্বাচনের মাধ্যমে এই সমিতি নতুন করে ঘুরে দাঁড়াবে বলেও ধারণা সংশ্লিষ্টদের।

এরপর জায়েদ খান ও চুন্নুর বিষয়ে বৈঠকে বসে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনী আপিল বোর্ড। বৈঠকে শেষে জা‌য়ে‌দের প্রার্থিতা বাতিল করে সাধারণ সম্পাদক পদে নিপুণ‌কে বিনা প্রতিদ্ব‌ন্দ্বিতায় জয়ী ঘোষণা করেন বোর্ডের প্রধান ও চলচ্চিত্র নির্মাতা সোহানুর রহমান সোহান। এর পরদিন ইলিয়াস কাঞ্চন ও নিপুণ পরিষদের বিজয়ীরা শপথ নেন।

নিপুণ‌কে বিনা প্রতিদ্ব‌ন্দ্বিতায় বিজয়ী ঘোষণা এবং নিজের প্রার্থিতা বাতিলের সিদ্ধান্তের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন চিত্রনায়ক জায়েদ খান। রিটের শুনানি নিয়ে বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনী আপিল বোর্ডের জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিলের সিদ্ধান্ত স্থগিত করেন। সেই সঙ্গে জায়েদের প্রার্থিতা বাতিল করে নিপুণকে বিজয়ী ঘোষণার বৈধতা প্রশ্নে রুল জারি করা হয়। এ ছাড়া নিপুণের অভিযোগের বিষয়ে নির্বাচনী আপিল বোর্ডকে সিদ্ধান্ত নিতে সমাজসেবা অধিদফতরের চিঠির কার্যকারিতাও স্থগিত করা হয়।

হাইকোর্টের এ আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করেন নিপুণ। সে আবেদনের শুনানি নিয়ে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত হাইকোর্টের আদেশ ১৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত স্থগিত করে বিষয়টি প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চে শুনানির জন্য নির্ধারণ করেন। সে পর্যন্ত চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পদে দুজনের কেউই দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না মর্মে (স্ট্যাটাসকো) আদেশ দেওয়া হয়।

এরপর প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে এ বিষয়ে শুনানি নিয়ে হাইকোর্টকেই তাদের জারি করা রুলটি নিষ্পত্তির নির্দেশ দেওয়া হয়। তবে হাইকোর্টে রুল নিষ্পত্তির আগপর্যন্ত চেম্বার আদালতের দেওয়া আদেশই বহাল থাকবে বলে নির্দেশ দেন দেশের সর্বোচ্চ আদালত।




Leave a reply