রাশিয়ার বিরুদ্ধে বিশ্বের ১৪১ দেশ, কূটনৈতিক স্বার্থে এখনও ‘নিরপেক্ষ’ অবস্থানে অনড় ভারত

|

ইউক্রেন ইস্যুতে রাশিয়ার বিরুদ্ধে সরব প্রায় গোটা বিশ্ব। দেশটির অন্দরে ঢুকে পড়ে লাগাতার হামলা চালাচ্ছে রাশিয়া। ইতিমধ্যেই ব্যবহার করা হয়েছে ভ্যাকিয়ুম বোমা এবং ক্লাস্টার বোমার মত পৃথিবীর অন্যতম মারাত্মক তথা নিষিদ্ধ অস্ত্রসস্ত্র। রাশিয়ান আক্রমনে মৃত্যু হয়েছে এক ভারতীয় ছাত্রের। এখনও ইউক্রেনে আটকে অগণিত ভারতীয় ছাত্রছাত্রী এবং নাগরিক। এহেন অবস্থায় নিজেদের অবস্থান নিয়ে অতি সাবধানী হতে হচ্ছে ভারতকে। ফলে বুধবার রাষ্ট্রসংঘের সাধারণ অধিবেশনের ভোটাভুটির থেকেও নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখল ভারত। অংশগ্রহণ করাই হল না ভোট দানে।

বুধবার ইউক্রেন পরিস্থিতিকে কেন্দ্র করে জরুরি সভার প্রস্তাব দেওয়া হয় নিরাপত্তা পরিষদের সাধারণ অধিবেশনে। ভোটাভুটির পর অবশেষে বিশ্বের মোট ১৯৩টি দেশকে নিয়ে বসে এই বৈঠক। গতকাল বিশ্বের ১৯৩টি দেশের মধ্যে ইউক্রেমের আন্তর্জাতিক সীমান্তকে স্বীকৃতি দিয়ে দেশের সার্বভৌমত্ব, স্বাধীনতা, একতা এবং আঞ্চলিক অখন্ডতা বজায় রাখা এবং রাশিয়ার আগ্রাসনের কড়া সমালোচনা করে ভোটাভুটি হয়।

এই প্রস্তাবনার পক্ষে ভোট দেয় বিশ্বের ১৪১ টি দেশ। প্রস্তাবনার বিরোধিতা করে ৫টি দেশ এবং নিরপেক্ষ থাকে ভারত সহ ৩৫টি দেশ। তবে ১৪১টি দেশের সমর্থনে গৃহীত হয় প্রস্তাব এবং তারপরই হাততালিতে ফেটে পড়ে সভাগৃহ।ওই প্রস্তাবনায় রাশিয়ার নিউক্লিয়ার আক্রমনের জন্য প্রস্তুতি এবং ইউক্রেনের বিরুদ্ধে বেলারুশের মাটিকে ব্যবহার করার তীব্র নিন্দা করা হয়েছে। একই সঙ্গে আগ্রাসন বন্ধ করে আন্তর্জাতিক দায়বদ্ধতা মেনে চলার অনুরোধ জানানো হয়েছে। দুই দেশের মধ্যের বিরোধ দ্রুত মিটিয়ে নেওয়ার প্রস্তাবও দেওয়া হয় ওই প্রস্তাবনায়।

ভোটদান থেকে এবারও বিরত ভারত। কিন্তু কেন ভারতের এই ‘ধরি মাছ না ছুই পানি’ অবস্থান? আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকদের মতে রাশিয়ার সঙ্গে বহু দিন ধরে ভালো রকম সখ্যতা ভারতের। একই সঙ্গে এর আগে বহুবার রাষ্ট্রপুঞ্জে ভারতের হয়েই ভোট দিয়েছে রাশিয়া। তাই সেই মিত্রতা নষ্ট করতে আপাতত রাজি নয় ভারত। অন্যদিকে রাশিয়ার পাশে দাঁড়িয়েছে চিন। ভারত রাশিয়ার বিপক্ষে গেলে এদিকে চিনের ভারত আক্রমনেরও একটি বিরাট সুযোগ তৈরি হবে। সেই সম্ভাবনাও ভাবাচ্ছে ভারতকে। সেই কারণেই নিজে নিরপেক্ষ অবস্থান বজায় রেখে ইউক্রেনের দিকে শিধু ‘সাহায্যের হাত’ বাড়ানোর পথে হাঁটছে ভারত।

প্রসঙ্গত, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদ বৈঠকে বসেছিল। সেখানে ১৫ টি দেশের মধ্যে ১১টি দেশ ইউক্রেন ইস্যুতে রাশিয়ার বিরোধী করে। সেখানেও নিরপেক্ষ ছিল ভারত সহ ৩ টি দেশ। শেষমেষ ভেটো প্রয়োগ করে অবশ্য প্রস্তাবনা খারিজ করে রাশিয়া।




Leave a reply