ইউক্রেনে হামলা: চীনের অনুরোধ রেখেছিল রাশিয়া

|

বেইজিংয়ে অনুষ্ঠিত শীতকালীন অলিম্পিক শেষ না হওয়া পর্যন্ত রাশিয়াকে ইউক্রেনে হামলা না করার অনুরোধ করেছিল চীন।

পশ্চিমা দেশগুলোর গোয়েন্দা তথ্যে এমন আভাস পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার (৩ মার্চ) মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এ তথ্য জানিয়েছে।

বুধবার (২ মার্চ) যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা জানান, গোয়েন্দা তথ্যে আভাস পাওয়া গেছে, বেইজিং অলিম্পিক শেষ না হওয়া পর্যন্ত যেন রাশিয়া ইউক্রেনে হামলা না করে রুশ কর্মকর্তাদের সেই অনুরোধ করেছিল চীন।

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নিতে চীনে গিয়েছিলেন। সে সময় তিনি চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গেও দেখা করেন। এ ধারণা থেকে মার্কিন কর্মকর্তারা গোয়েন্দা তথ্যকে সত্যই মনে করছেন।

ওয়াশিংটনে চীনা দূতাবাসের মুখপাত্র লিউ পেনগিউ জানিয়েছেন, এগুলো আসলে সন্দেহভিত্তিক কথা। চীনকে দোষারোপ করাই এর লক্ষ্য। তবে এ বিষয়ে রুশ দূতাবাসের মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

জাতিসংঘের মানবাধিকার কার্যালয় বলছে, ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের প্রথম পাঁচ দিনে ২২৭ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন।

কর্মকর্তারা বলছেন, সংঘর্ষের সময় ইউক্রেনে আরও ৫২৫ বেসামরিক লোক আহত হয়েছেন।

এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এ হতাহতের বেশিরভাগই ভারী কামান ও মাল্টি-লঞ্চ রকেট সিস্টেম থেকে গোলাবর্ষণ এবং বিমান হামলাসহ বিস্ফোরক অস্ত্র ব্যবহারের কারণে ঘটেছে।

সংস্থাটি বলেছে, তারা বিশ্বাস করে প্রকৃত হতাহতের সংখ্যা বেশি। কারণ বিশেষ করে সরকার নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে হতাহতের খবর পেতে বিলম্ব হচ্ছে।

প্রায় দুই মাস ধরে ইউক্রেন সীমান্তে প্রায় ২ লাখ সেনা জড়ো করে রাশিয়া। রাশিয়ার সেনা মোতায়েন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো বারবার সতর্কতা দিয়েছিল। কিন্তু বরাবরই ইউক্রেনে হামলা চালানোর আশঙ্কা উড়িয়ে দেয় রাশিয়া।

এরপর গত ২৪ ফেব্রুয়ারি রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেনে হামলা চালানোর নির্দেশ দেন। ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় রুশ বাহিনী। ধ্বংস করে বিভিন্ন বিমানঘাঁটি ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা। হামলা থেকে বাঁচতে ইউক্রেন থেকে পালাচ্ছে লাখো মানুষ। এরইমধ্যে বেশ কয়েকটি শহরের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে সেনারা।




Leave a reply