ভয়াবহ প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে পড়বে ৩৬০ কোটি মানুষ

|

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে আগামী ২০ বছরে ভয়াবহ প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের মুখে পড়বে পৃথিবীর প্রায় ৩৬০ কোটি মানুষ। সম্প্রতি জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস ‘ইন্টারগভর্নমেন্টাল প্যানেল ফর ক্লাইমেট চেঞ্জ আইপিসিসি’-এর রিপোর্ট প্রকাশ করে সবাইকে সতর্ক বার্তা দিয়েছেন।

সুন্দর এই পৃথিবী যেন ধীরে ধীরে প্রাণিজগতের বসবাসের যোগ্যতা হারাচ্ছে। বৈশ্বিক নানা বৈরিতায় এখন হুমকির মুখে জীবন-জীবিকা। চলমান যুদ্ধের ডামাডোলের আতঙ্কের মাঝে আরেক মহাবিপর্যয়ের খবর প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ।

জাতিসংঘের ওই রিপোর্টে বলা হয়েছে, ২০৫০ সালের মধ্যে পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা বাড়বে অন্তত দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াস। ফলে পৃথিবীর জলবায়ুর পরিবর্তন ঘটবে ব্যাপকভাবে। আর জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বিশ্বজুড়ে ভয়াল বন্যা, ঘূর্ণিঝড়, শৈত্যপ্রবাহ, খরা, অতিবৃষ্টি, তাপপ্রবাহ, দাবানলের মতো ঘটনা ও এর তীব্রতা এতটাই বাড়বে যে, তাতে বিপন্ন হবে বিশ্বের কোটি কোটি মানুষসহ বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণী ও উদ্ভিদকুল। ভেঙে পড়বে জল ও স্থলের সার্বিক ইকো সিস্টেম বা বাস্তুতন্ত্র। দেখা দেবে খাদ্য ও সুপেয় পানির তীব্র সংকট।

৬৭টি দেশের ২৭০ জন জলবায়ু বিশেষজ্ঞের তৈরি ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, মানুষের নানা ধরনের পরিবেশবিরোধী কর্মকাণ্ড ও জীবাশ্ম জ্বালানির অনিয়ন্ত্রিত ব্যবহারের কারণে যে হারে গ্রিনহাউস গ্যাসের নির্গমন বাড়ছে, তা এখন নিয়ন্ত্রণের বাইরে। ফলে দুই দশকের মধ্যে মারাত্মক প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন জলবায়ু বিশেষজ্ঞরা।

তবে ভয়াবহ আতঙ্কের খবর হচ্ছে, চাইলেই এত অল্প সময়ে তাপমাত্রা বৃদ্ধি রোধ করে এমন বিপর্যয় ঠেকানো সম্ভব নয়। এরই মধ্যে জলবায়ু পরিবর্তনের ভয়াবহ প্রভাব পড়েছে আফ্রিকা, এশিয়া, মধ্য ও দক্ষিণ আমেরিকা, অ্যান্টার্কটিকাসহ দ্বীপপুঞ্জগুলোতে। আগামী ২০ বছরে তা আরও প্রকট হয়ে উঠবে। ক্ষতিগ্রস্ত হবে সভ্যতা ও নাগরিক জীবন। বাড়বে দারিদ্র্য ও বেকারত্ব–এমন আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের।




Leave a reply