রাশিয়ার ওপর চরম প্রতিশোধ নিলেন ইউক্রেনের টেনিস সুন্দরী

|

রাশিয়ার একের পর এক হামলায় বিপর্যস্ত ইউক্রেন। এমন অবস্থায় অনেকে অস্ত্র ধরছেন প্রিয় মাতৃভূমির জন্য, কেউবা আবার দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন পরিবারসহ। তবে কেউ কেউ মাঠের দ্বৈরথেও দাঁতে দাঁত চেপে লড়ছেন এবং প্রতিশোধও নিচ্ছেন।

ইউক্রেনে রুশ আগ্রাসনের মধ্যেই দুই দেশের টেনিস তারকারা মন্টেরি ওপেনের লড়াইয়ে মুখোমুখি নেমেছেন। যদিও শত্রুদেশের বিপক্ষে প্রথমে খেলতে চাননি ইউক্রেনের টেনিস তারকা এলিনা সভিতোলিনা। তবে পরে কর্তৃপক্ষ রুশ খেলোয়াড়দের দেশের পতাকা ও নাম ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা দিলে রাজি হন। আর কোর্টে নেমেই ঝাঁজটা নিংড়ে দিলেন।

দেশের পতাকার আদলে তৈরি পোশাক পরে খেলতে নেমেছিলেন এলিনা। নেমেই আগুন ছড়ালেন। যে দেশের হামলায় প্রিয় মাতৃভূমি আজ ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে, সে দেশের খেলোয়াড়ের ওপরই প্রতিশোধটা নিলেন। রুশ তারকা পোতাপোভার বিপক্ষে মাত্র ৬৪ মিনিটেই ম্যাচটি জিতে নেন। স্কোরলাইনে চোখ রাখলে বোঝা যায় তার দাপটটা। জিতেছেন সরাসরি সেটে, ৬-২, ৬-১ গেমে।

এদিকে, ম্যাচ শুরুর আগেই ইউক্রেনীয় টেনিসার জানিয়েছিলেন, প্রাইজমানির পুরো অর্থ দেশের সেনাবাহিনীকে দেবেন। ম্যাচ শেষে বলেন, ‘আমি একে আমার মিশন হিসেবে দেখছি। আমাদের টেনিস জগৎকে ইউক্রেনের পাশে এনে দাঁড় করানোর, সাহায্য আদায় করার মিশন।’

ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযানে এরই মধ্যে বহু মানুষ মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছে। এবার প্রাণ গেল দেশটির দুই ফুটবলারের। রাশিয়ার সামরিক অভিযানে নিহত হওয়া ইউক্রেনের দুই ফুটবলার হলেন ভিটালি স্যাপিলো এবং দিমিত্রো মার্টিনেনকো। ভিটালি স্যাপিলো কার্পাটি লভিভের যুব দলের হয়ে খেলতেন। তার মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করেছে তার ক্লাব লভিভ। এ ছাড়া দুজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ফুটবলারদের আন্তর্জাতিক সংগঠন ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব প্রফেশনাল ফুটবলার্স (ফিফপ্রো)।

মার্কার খবরে বলা হয়েছে, ২১ বছর বয়সী ভিটালি স্যাপিলো দেশের ডাকে সাড়া দিয়ে খেলা ছেড়ে যোগ দিয়েছিলেন ইউক্রেনের সেনাবাহিনীতে। কিয়েভের কাছাকাছি রুশ সেনাদের সঙ্গে মুখোমুখি যুদ্ধের সময় প্রাণ হারান তিনি। এ ছাড়া মার্টিনেনকো খেলতেন রাশিয়ান ক্লাব এফসি গোস্টোমেলের হয়ে। রুশ আগ্রাসনের সময় তিনি নিজ দেশ ইউক্রেনেই ছিলেন। একটি বোমা তার বাড়িতে আঘাত করলে মুহূর্তেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন মার্টিনেনকো।

এদিকে ইউক্রেনের দুই ফুটবলারের মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করে ফিফপ্রো এক বিবৃতিতে জানায়, ‘চলমান যুদ্ধে এটাই ফুটবলের প্রথম এতবড় ক্ষতির খবর। তারা দুজনেই শান্তিতে থাকুক।’

ইউক্রেনে সামরিক হামলার জেরে রাশিয়ার জাতীয় দল ও ক্লাব ফিফা এবং উয়েফার কোনো আসরে অংশ নিতে পারবে না। বিশ্ব ও ইউরোপিয়ান ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্তা সংস্থা দুটি সোমবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) যৌথ বিবৃতিতে এই সিদ্ধান্তের কথা জানায়।




Leave a reply