খাদ্যমন্ত্রী : চালের দাম স্থিতিশীল করতে জনসচেতনতা দরকার

|

চালের দাম স্থিতিশীল করতে জনসচেতনতা দরকার বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। এ সময় বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষকে ব্যবসায়ীরা ভয় পায় না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ লাইসেন্সিং অথরিটি না থাকায় ব্যবসায়ীরা এ সংস্থাকে ভয় পায় না। তারা লাইসেন্স যে দেয়, তাদেরকে ভয় করে।

মঙ্গলবার (৭ জুন) বিশ্ব নিরাপদ খাদ্য দিবস উপলক্ষ্যে ‘উন্নত অর্থনীতির জন্য নিরাপদ খাদ্য’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, চালের দাম স্থিতিশীলতার জন্য জনসচেতনতাও দরকার। আমরা বস্তায় চাল কিনি না। কিন্তু সেই চাল যখন পালিশ করে প্যাকেটে ভরে তখন ১০ টাকা বেশি দিয়ে কিনি। সে জন্য ব্যবসায়ীরাও এই সুযোগ নিয়ে থাকে।

খাদ্যের মান উন্নয়ন করার পরামর্শ দিয়ে ব্যবসায়ীদের উদ্যেশে মন্ত্রী বলেন, কেউ কেউ মুনাফার জন্য ইচ্ছে করে অনিরাপদ খাদ্য তৈরি করে। আমরা চাই দেশের খাদ্য বিদেশে বাজার জয় করুক। এখন যেটুকু বিদেশে রফতানি হচ্ছে, সেটা প্রবাসী বাংলাদেশিরা খাচ্ছে। চাই, অন্যান্য দেশের মানুষ বাংলাদেশি পণ্য খাবে।

চাল নিরাপদ করতে নতুন আইন আসছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, চালের পুষ্টিমান ঠিক থাকবে। খসড়া আইনটি কেবিনেটে পাশ হয়ে এখন ভেটিংয়ে রয়েছে। আগামী অধিবেশনে পাশ হলে চাল ব্যবসায়ীদের কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ সহজ হবে।

এ সময় মন্ত্রী বলেন, খাদ্য সংশ্লিষ্ট সকলকে একটি সংস্থার অধীনে আনতে কাজ করছে সরকার। তবে খাদ্য ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কৃষি বাণিজ্য শিল্প এবং খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সংস্থাগুলোর মধ্যে মতভেদ রয়েছে। এ জন্য কারা তদারকি করবে সে বিষয়টি কেবিনেট (মন্ত্রীপরিষদ সভা) ঠিক করে দেবে বলে জানান তিনি।




Leave a reply