‘আমি রাশিয়ার এক নম্বর টার্গেট’, ক্ষোভ উগরে বললেন জেলেনস্কি

|

ইউক্রেনের বিভিন্ন শহরে বৃহস্পতিবার রুশ বাহিনীর হামলায় অসংখ্য মানুষের মৃত্যু হয়েছে। যদিও ইউক্রেন সেনার মতে, তাদের মাত্র ৪০ জন জওয়ান এই হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন। রাশিয়ার দুই সেনা জওয়ান লড়াইয়ে ধরা পড়েছে। তাদের ছবিও প্রকাশ করেছে ইউক্রেন। শুধু তাই না, রাশিয়ার ছয়টি হেলিকপ্টার তারা গুলি করে নামিয়েছে বলেই দাবি করেছে ইউক্রেন সেনার। বৃহস্পতিবার দিনভর ইউক্রেনের একের পর শহরে শোনা গিয়েছে গোলার শব্দ। কিয়েভ-সহ বিস্ফোরণের আওয়াজ পাওয়া গিয়েছে খারকিভের মতো ইউক্রেনের অন্যান্য শহরগুলো থেকেও।

যুদ্ধের শহরে সকলে প্রাণ বাঁচাতে ব্যস্ত। কে-ই বা সে খবর রাখে! রাশিয়ার বিমান হানায় বিধ্বস্ত হয়ে গিয়েছে খারকিভের একের পর এক বহুতল। ইউক্রেনের একাধিক বিমানঘাঁটিতে হামলা চালিয়েছে রাশিয়া। ধ্বংস করে দিয়েছে অস্ত্রাগার। লুহানস্কের স্কাত্সিয়া, স্ট্যানিত্সিয়া শহর দখল করে নিয়েছে রুশ সেনাবাহিনী। ক্রিমিয়া, বেলারুশ, রাশিয়া সীমান্তের পাশাপাশি আকাশপথেও হামলা চালাচ্ছে রাশিয়া।

কৃষ্ণসাগরে ব্যালেস্ট্রিক ক্ষেপণাস্ত্রবাহী রুশ যুদ্ধজাহাজকে দেখা গেছে। তুরস্কের জলপথ দিয়েই রাশিয়ার যুদ্ধজাহাজ ঢুকছে ইউক্রেনের পথে। তুরস্ককে ওই দুটি প্রণালী বন্ধ করতে অনুরোধ করেছে ইউক্রেন। আমেরিকার দীর্ঘদিনের সঙ্গী তুরস্ক জলপথ বন্ধ করলে তা বিশ্বযুদ্ধের চেহারা নেবে। কারণ, ইতিমধ্যেই তুরস্কের শত্রুদেশ সিরিয়া সমর্থন করেছে রাশিয়াকে।

এই পরিস্থিতিতে এখনও পর্যন্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সরাসরি মার্কিন সেনা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করবে না বলে জানিয়েছেন। একই কথা জানিয়েছেন ব্রিটেন থেকে শুরু করে ন্যাটোর কর্তারাও। বৃহস্পতিবার দিনভর ইউক্রেনের বিভিন্ন সেনা ভবনে আছড়ে পড়েছে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র। খারকিভ থেকে নিপ্রো-সহ বিভিন্ন এলাকায় মিসাইল হামলা চালিয়েছে রাশিয়া। ওডেসাতে জমা হয়েছে বিশাল সংখ্যক রুশ সেনা। কিয়েভ থেকেও বারবার পাওয়া গেছে বিস্ফোরণের শব্দ। ইউক্রেনের রাজপথে সাঁজোয়া গাড়ি নিয়ে সেনাবাহিনীর জওয়ানদের দেখা গিয়েছে।

এই পরিস্থিতিতে ইউক্রেনের বাসিন্দারা সকলে নিরাপদ স্থানে পালাতে চাইছেন। যার জেরে রাস্তাগুলোয় তৈরি হয়েছে ব্যাপক যানজট। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির জেলেনস্কি জানিয়েছেন, তাঁরা শেষ পর্যন্ত লড়াই করবেন। এই পরিস্থিতিতে ইউক্রেনে আটকে পড়া ভারতীয়দের ফেরাতে নয়াদিল্লিতে কন্ট্রোল রুম খুলেছে বিদেশ মন্ত্রক। রাতে, ইউক্রেন পরিস্থিতি নিয়ে প্রেসিডেন্ট পুতিনের সঙ্গে বৈঠক করতে পারেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।




Leave a reply