রাশিয়ার আগ্রাসন নিয়ে ভারতের অবস্থানে অসন্তুষ্ট ইউক্রেন

|

রাশিয়ার আগ্রাসন নিয়ে ভারতের অবস্থানে ক্ষুব্ধ ইউক্রেন। ভারতে নিযুক্ত ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত ইগোর পোলিখা স্পষ্ট বলেন, ”ভারতের অবস্থানে আমরা অসন্তুষ্ট। ইউক্রেনের বর্তমান পরিস্থিতিতে সাহায্যে এগিয়ে আসা উচিত ভারতের”, ভারতকে অনুরোধ ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূতের। তবে ইতিমধ্যেই পুতিনকে যুদ্ধ বন্ধের আবেদন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সে প্রসঙ্গে ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত বলেন, “আমি জানি না কত বিশ্ব নেতার কথা পুতিন শুনতে পারেন। তবে মোদিজির অবস্থান আমাকে আশাবাদী করেছে।”

রাশিয়ার হামলায় ইতিমধ্যেই ইউক্রেনে বহু মানুষের মৃত্যু হয়েছে। ইউক্রেনের একের পর এক শহরে রুশ গোলা আছড়ে পড়ছে। ইউক্রেনের একের পর শহরে শোনা গিয়েছে গোলার শব্দ। কিয়েভ-সহ বিস্ফোরণের আওয়াজ পাওয়া গিয়েছে খারকিভের মতো ইউক্রেনের অন্যান্য শহরগুলো থেকেও। এদিকে, ইউক্রেনে থাকা ভারতীয়দের উদ্ধারের চেষ্টার পাশাপাশি সেদেশের পরিস্থিতির দিকেও কড়া নজর রাখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে বিদেশ মন্ত্রক। তবে বিদেশ মন্ত্রকের এই বক্তব্যে অসন্তুষ্ট ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত পোলিখা।

তিনি বলেন, ”ভারতের সমস্ত প্রতিবেদন দেখছি। ইউক্রেনে নিজেদের দেশের নাগরিকদের প্রতি ভারতের সর্বশেষ পরামর্শটি ছিল কেবল বাইরে না যাওয়া, কিয়েভে না যাওয়া। বিদেশমন্ত্রী বলেছিলেন, ভারত পরিস্থিতির দিকে কড়া নজর রাখছে। আমরা তাঁদের অবস্থান নিয়ে গভীরভাবে অসন্তুষ্ট। এর মানে কী? ঘনিষ্ঠভাবে অনুসরণ বা আরও ঘনিষ্ঠভাবে? এখন ১০-১৫ জন নিহত হয়েছেন। লাখ লাখ মানুষ নিহত হলে কী হবে? আমরা অপেক্ষা করছি, আমরা জিজ্ঞাসা করছি, আমরা এক্ষেত্রে ভারতের শক্তিশালী কণ্ঠস্বরের জন্য অনুরোধ করছি।”

উল্লেখ্য, ইউক্রেনের একাধিক মেডিক্যাল কলেজে বিপুল সংখ্যক ভারতীয় ছাত্রছাত্রী পড়াশোনা করেন। তাঁদের কথা উল্লেখ করে পোলিখা বলেন, ”এই ভারতীয় নাগরিকদের নিরাপত্তার জন্যও ভারতের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন।” তিনি আরও বলেন, ”ইউক্রেনে সবচেয়ে বেশি ভারতীয় পড়ুয়া রয়েছেন। সংখ্যাটা ২০ হাজারেরও বেশি। আপনাদের নাগরিকদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা আমাদেরও দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। কিন্তু প্রথমত আপানদেরই এক্ষেত্রে এগিয়ে আসতে হবে। ভারতের তরফে তাঁদের নাগরিকদের উদ্ধারের বার্তা পেয়েই আমরাও সহযোগিতার হাত বাড়ানোর চেষ্টা করেছি। তবে দুর্ভাগ্যক্রমে এখন ইউক্রেনের আকাশসীমা বন্ধ।”

এই পরিস্থিতিতে অনেকেই ইউক্রেন ছাড়তে চাইছেন না বলেও দাবি সেদেশের রাষ্ট্রদূতের। তিনি বলেন, ”আমি ইউক্রেনে বসবাসকারী অনেক ভারতীয়ের সঙ্গে কথা বলেছি। তাঁদের অধিকাংশই সরে যেতে চান না। তাঁরাও শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য প্রার্থনা করছেন। এক্ষেত্রে শুধুমাত্র ইউক্রেনের স্বার্থে নয় এমনকী আপনাদের নাগরিকদের জন্যও, শক্তিশালী বিশ্বনেতা মোদীজি-সহ আমাদের সকলকে এই আগ্রাসন বন্ধ করার জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা করা উচিত।”




Leave a reply