পুতিনের আলোচনার প্রস্তাব উড়িয়ে দিল যুক্তরাষ্ট্র

|

ইউক্রেনকে দেওয়া রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের আলোচনার প্রস্তাবকে উড়িয়ে দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির পররাষ্ট্র দপ্তর বলছে, পুতিনের প্রস্তাব ‘প্রকৃতঅর্থে কূটনীতি নয়’।

স্থানীয় সময় শুক্রবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) ওয়াশিংটনে পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র নেড প্রাইস সাংবাদিকদের বলেন, বন্দুকের আওয়াজ চালিয়ে কূটনীতি চলতে পারে না। কূটনৈতিক প্রক্রিয়াকে এগিয়ে নিতে রাশিয়াকে হামলা চালানো বন্ধ করতে হবে। পাশাপাশি তাদের সৈন্য প্রত্যাহার করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, পুতিন কূটনীতিকে সফল হতে দেবেন- যুক্তরাষ্ট্র এটা বিশ্বাস করে না।

এদিকে রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধবিরতি ও শান্তি আলোচনার জন্য জেরুজালেম উত্তম জায়গা বলে মত দিয়েছেন ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত। ইসরাইলে ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত ইয়েভগেন কর্নিচুক সিএনএনকে বলেছেন, ইউক্রেন ও রাশিয়ার মধ্যে আলোচনায় মধ্যস্থতা করতে ও সাহায্য করতে ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

তিনি বলেছেন, ইউক্রেন প্রেসিডেন্ট বিশ্বাস করেন, ইসরায়েলই একমাত্র গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র যার রাশিয়া ও ইউক্রেন উভয়ের সঙ্গেই দুর্দান্ত সম্পর্ক রয়েছে এবং সেই সুবিধার্থে আলোচনার ব্যবস্থা যেতে পারে।

কর্নিচুক বলেন, মিনস্কের চেয়ে জেরুজালেম পছন্দনীয় যেখানে পূর্ববর্তী আলোচনা হয়েছিল। কারণ বেলারুশ রাশিয়ার ঘনিষ্ঠ মিত্র এবং ইউক্রেন বেলারুশের বর্তমান নেতা আলেকজান্ডার লুকাশেঙ্কোর ‘বৈধতা বিশ্বাস করে না’।

এর আগে রাশিয়া বলেছে তারা তখনই ইউক্রেনের সঙ্গে কথা বলবে যখন ইউক্রেনের সশস্ত্র বাহিনী আত্মসমর্পণ করবে।

এদিকে ইউক্রেন শান্তি আলোচনার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করার খবর অস্বীকার করেছে।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র সেরহি নাইকিফোরভ ফেসবুকে বলেছেন, আমরা আলোচনা প্রত্যাখান করার বিষয়টি অস্বীকার করেছি। ইউক্রেন যুদ্ধের অবসান এবং শান্তির বিষয়ে কথা বলতে সর্বদা প্রস্তুত ছিল এবং থাকবে। এটি সিদ্ধান্তের ব্যত্যয় ঘটবে না।

তিনি বলেন, আমরা রুশ প্রেসিডেন্টের প্রস্তাবে সম্মত হয়েছি। যত তাড়াতাড়ি আলোচনা শুরু হবে, স্বাভাবিক জীবন ফিরিয়ে আনার সম্ভাবনা তত বেশি হবে।




Leave a reply