সাপের কামড়? এক ট্যাবলেটেই সুস্থ হবেন রোগী, মিলবে চিকিৎসার বাড়তি সময়

|

এ যেন কাঁটা দিয়ে কাঁটা তোলা! বিষে মজুত মারণাস্ত্রকে অকেজো করতে এই পথেই হাঁটছে চিকিৎসাবিজ্ঞান। বিষের চরিত্র বুঝে এমন এক ট্যাবলেট তৈরি করা হয়েছে যা সর্পদষ্টার প্রাণনাশের ঝুঁকি অনেকটাই কমিয়ে দেবে। অন্তত এমনটাই দাবি চিকিৎসাবিজ্ঞানীদের। তাঁদের বক্তব্য, সর্প দংশনের পর রোগীকে দ্রুত এই ওষুধ খাইয়ে দিলে বিষক্রিয়ায় অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিকল হওয়ার সম্ভাবনা কমতে শুরু করবে। চিকিৎসার জন্য মিলবে বাড়তি সময়। এমনই ‘ওয়ান্ডার ড্রাগ’-এর ট্রায়াল শুরু কলকাতা, পার্ক সার্কাসের ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। নেতৃত্বে হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগ।

অ্যান্টিভেনাম থাকার পরেও কেন প্রয়োজন ট্যাবলেটের? বাংলার ঝোপঝাড়ে চার নাগের প্রভাব মারাত্মক। কেউটে, কালাচ, গোখরো ও চন্দ্রবোড়ার মতো বিষধরের কামড়ে মৃত্যু গা সওয়া। সময়মতো অ্যান্টিভেনাম দিয়েও বাঁচানো যায় না আক্রান্তদের। সর্পবিশেষজ্ঞরা বলছেন, মৃত্যুর নিশ্চিত হানার নেপথ্যে সাপের বিষের চরিত্র। যা কিনা বদলে যায় এলাকা অনুযায়ী। যে কারণে স্থানীয় সাপের বিষ সংগ্রহ করে অ্যান্টিভেনাম তৈরির উপর জোর দেওয়া হচ্ছে। তারই মধ্যে এই ট্যাবলেটের ট্রায়াল।




Leave a reply