কান্না করলেই ভালো থাকবে মানসিক স্বাস্থ্য

|

চোখের পানি যত ঝরবে মনের চাপ ততই কমে যাবে। তাই কান্নার উৎসাহ দিয়ে রীতিমতো ক্লাস করানো হচ্ছে জাপানে। অনেক কোম্পানী এবং স্কুল কর্তৃপক্ষ তাদের কর্মী ও শিক্ষার্থীদের কান্না করার জন্য উৎসাহিত করছে। তারা বলছে, মানসিক চাপ কমাতে কিংবা মন ভাল রাখতে কান্নার কোন বিকল্প নেই।

বিশেষজ্ঞদের মতে, চোখের পানি স্নায়ুর চাপ কমিয়ে মনকে শান্ত করতে সাহায্য করে। এ কারণে জাপানে কান্না নিয়ে অনেক ধরনের কর্মশালাও হচ্ছে ।

জাপানের নিপ্পন মেডিকেল স্কুলের অধ্যাপক জুনকো ওমিহারা বলেন, মানসিক চাপ কমাতে কান্না আত্মরক্ষার কৌশল হিসাবে কাজ করে । হাইডফুমি ইওসহিদি নামের একজন জাপানিজ হাই স্কুলের সাবেক শিক্ষক কান্নার প্রশিক্ষক কাজ করছেন গত কয়েক বছর ধরে ।তিনি দেশের নানা প্রান্তে বিভিন্ন কোম্পানি এবং স্কুলগুলোতে কান্নার ক্লাস নেন।সেখানে তিনি কান্নার উপকারিতা সম্পর্কে জানান সবাইকে। তার মতে, মনের চাপ কমাতে হাসি কিংবা ঘুমের চেয়েও বেশি কাজ করে কান্না।

২০১৫ সালে জাপান ৫০ টিরও বেশি কোম্পানিতে কর্মীদের মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার নিয়ম বাধ্যতামুলক করেছে। তখন থেকেই ইওসহিদি বিভিন্ন কোম্পানি ও স্কুলে মানসিক চাপ কমানোর ক্লাস নেওয়ার আমন্ত্রন পান। তখন থেকেই তিনি বিভিন্ন জায়গায় সবাইকে মানসিক স্বাস্থ্য ভাল রাখতে কান্না করার উৎসাহ দেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, কান্নার পরিবেশ সৃষ্টি করতে সবারই আবেগঘন কোন সিনেমা, দুঃখের কোন গান কিংবা সেইরকম বই পড়া উচিত। তারা বলছেন, সপ্তাহে একবার যদি কান্না করা যায় তাহলে মানসিক চাপ অনেক কমবে।








Leave a reply