জায়েদ-নিপুণের দ্বন্দ্ব, যা বললেন হেলেনা জাহাঙ্গীর

|

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনের সাধারণ সম্পাদক পদটি নানান জল্পনা- কল্পনা পেরিয়ে হাইর্কোট পর্যন্ত ঘিয়েছে। চিত্রনায়ক জায়েদ খান ও নিপুণের আইনি লড়াই চলছে। ওই নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে চিত্রনায়ক জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিলের সিদ্ধান্ত কেন অবৈধ হবে না, এ মর্মে জারি করা রুল শুনানির জন্য আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি (দুপুর ২টা) দিন নির্ধারণ করেছেন আদালত।

গেল বৃহস্পতিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ দিন ধার্য করেন। এদিকে শনিবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) এফডিসিতে বাংলাদেশ ফিল্ম ক্লাব লিমিটেড-এর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। দুপুর ২টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে চলে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত। এদিন ভোট দিতে এফডিসিতে হাজির হয়েছিলেন আলোচিত-সমালোচিত রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী ও নারী উদ্যোক্তা হেলেনা জাহাঙ্গীর।

তিনি বলেন, ‘নির্বাচন মানেই পরিবর্তন। একচেটিয়া কেউ ক্ষমতায় থাকলে সেখানে দখলের আধিপত্য চলে আসে। ফিল্ম ক্লাবটি খুব ধীর গতিতে আগাচ্ছে। ক্লাবটির দ্রুত পরিবর্তনের আশা ব্যক্ত করছি।’

এদিকে শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পদে চিত্রনায়ক জায়েদ খান ও চিত্রনায়িকা নিপুণ আক্তারের দ্বন্দ্ব প্রসঙ্গে হেলেনা জাহাঙ্গীর গণমাধ্যমকে বলেন, ‘শিল্পী সমিতির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জায়েদ ও নিপুণের মধ্যে যে ঘটনাটি ঘটেছে, সেটা তারা নিজেরা বসেই মীমাংসা করতে পারতো। নির্বাচনের পর সবাই কিন্তু এক হয়ে যায়। নির্বাচনে প্রতিযোগিতা করেই পাস করা হয়। ভোটে নির্বাচিত হওয়ার পর এভাবে হাইকোর্ট পর্যন্ত গড়ানোটা আমি সাপোর্ট করি না।’

প্রসঙ্গত, গত ২৮ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ২০২২-২৪ মেয়াদের নির্বাচনের প্রাথমিক ফলে সাধারণ সম্পাদক পদে জায়েদ খানকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। তবে তার বিরুদ্ধে টাকা দিয়ে ভোট কেনাসহ নির্বাচনকে প্রভাবিত করার অভিযোগ আনলে ৫ ফেব্রুয়ারি সেই প্রেক্ষিতে আপিল বোর্ড জায়েদের প্রার্থিতা বাতিল করে। পরে নির্বাচনের আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান সোহানুর রহমান সোহান প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী চিত্রনায়িকা নিপুণকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাধারণ সম্পাদক পদে জয়ী ঘোষণা করেন। এরপর থেকেই বিষয়টি ‘বেআইনি’ বলে দাবি করে আসছেন জায়েদ খান। আপাতত সাধারণ সম্পাদক পদে স্থিতাবস্থা বহাল রাখা হয়েছে।




Leave a reply